আজ বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

নড়িয়ায় বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র উদ্বোধন করলেন উপমন্ত্রী শামীম

শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় ২০ কেভি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র উদ্বোধন ও পদ্মার ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে অনুদানের চেক বিতরণ করেছেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী ও বাংলাদশে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম এমপি।
শনিবার (১০ আগষ্ট) দুপুরে উপজেলার চাকধ এলাকায় তিনি এ বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র উদ্বোধন ও পরে নড়িয়া-সখিপুরের বন্যা ও নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর তহবিলের বিশেষ বরাদ্দের অনুদানের ১৬ লাখ টাকার চেক বিতরণ করেন।
জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে, নড়িয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম ইসমাইল হক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়ন্তী রূপা রায়, নড়িয়া পৌরসভার মেয়র শহিদুল ইসলাম বাবু রাড়ী, শরীয়তপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মো: ছোহরাব আলী বিশ্বাস, নড়িয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল ওহাব বেপারী, নড়িয়া আওয়ামীলীগের সভাপতি হাচান আলী রাড়ী, সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকন, নড়িয়া উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান জাকির বেপারী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা বেগম, উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী সুনীল কুমার ঘোষ, উপজেলা পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির সহকারী জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী মো: মিজানুর রহমান, ইতালি শাখা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি লিটনসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
বিদ্যুৎ কেন্দ্র উদ্বোধন শেষে উপমন্ত্রী নড়িয়া-সখিপুরের বন্যা ও নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থ ও দুস্থদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর তহবিলের বিশেষ বরাদ্দ থেকে ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকা করে ৪৫ জনকে মোট ১৬ লক্ষ টাকা অনুদানের চেক প্রদান করেন।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম বলেন, “শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ” এই শ্লেগানকে বাস্তবে রূপ দিতে বিদ্যুৎকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে সরকার। তাই এই শোকের মাসেও বৃহৎ জনস্বার্থে এই বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে। ইনশাআল্লাহ আজকের পর থেকে নড়িয়ায় আর কোন বিদ্যুতের লোড শেডিং থাকবে না। এছাড়া নড়িয়া উপজেলার বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চলকেও ইতিমধ্যে সাবমেরীন ক্যাবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় আনা হয়েছে। যা ঐ দ্বীপের মানুষকে আধুনিক সভ্যতার সাথে সংযুক্ত করবে।
তিনি বলেন, আমাদের জন্যে যেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বদনাম না হয়। আমাদের সেদিকে আমাদের খেয়াল রাখতে হবে। জননেত্রী শেখ হাসিনা যা বলেন তাই করেন। আর তার কর্মী হিসেবে আমরাও জনগণকে যা প্রতিশ্রুতি দেই, তা বাস্তবায়নে আপ্রাণ চেষ্টা করি। ২০ কেভি ক্ষমতাসম্পন্ন বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র উদ্বোধন করতে পেরে আমি আনন্দিত। ঈদে ঢাকা ও বিদেশ থেকে আসা প্রবাসীরা ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ সুবিধা পায়, সেদিকে লক্ষ্য রেখে ঈদের আগে বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রটি উদ্বোধনের জন্য বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষকে বলেছিলাম।
এছাড়া তিনি এলাকায় মাদক নির্মূল ও গোষ্ঠির ঝগড়া যেন রাজনৈতিক রূপ না নেয়, সেদিকে এলাকার জনপ্রতিনিধিদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে বলেন।
শরীয়তপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মহাব্যবস্থাপক মো. ছোহরাব আলী বিশ^াস জানান, মোট ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে নড়িয়া-১ বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রের ক্ষমতা বৃদ্ধির ফলে এখন নড়িয়া উপজেলা ও সখিপুর থানার ৬৪ হাজার ৮৭৮ জন গ্রাহক নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সুবিধা পাবেন।