আজ বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

করোনা সঙ্কটে শরীয়তপুরবাসীর ভরসা উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম

করোনা সঙ্কটে শরীয়তপুরবাসীর ভরসা উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম
নিজ নির্বাচনী এলাকার এক বৃদ্ধের খোজ-খবর নিচ্ছেন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম এমপি

করোনা বিপর্যয়ে স্থবির হয়ে পরেছে সারাদেশ। দিনমজুর-অভাবী মানুষের দুঃখের যেন সীমা নেই। এই দুঃসময়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের পাশে পাবেন সাধারণ মানুষ এটাই প্রত্যাশা। কিন্তু বেশীর ভাগ জনপ্রতিনিধিদেরই খুজে পাওয়া যাচ্ছেনা বলে অভিযোগ। খোদ দলীয় নেতাকর্মীদের এড়িয়ে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে অনেক জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে। কিন্তু এর বাইরেও কিছু জনপ্রতিনিধিরা নিরলস ভাবে কাজ করে হয়েছেন জননন্দিত। তেমনি একজন শরীয়তপুর-২ (নড়িয়া-সখিপুর) আসনের সংসদ সদস্য, পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম। করোনা সঙ্কটে নিজের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে চেষ্টা করেছেন সাধারণ মানুষের পাশে দাড়ানোর।

প্রতি সপ্তাহে অন্তত দু’দিন নিজের নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করছেন। শরীয়তপুর জেলায় এ পর্যন্ত নিজের উদ্যোগে ২৫ টি ইউনিয়নে প্রায় ৩৫ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সম্মিলিত এ সহায়তা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৫০ হাজারের কাছাকাছি। শুধু তাই নয়, জেলার ৬ টি হাসপাতালে প্রায় ১২ হাজার মাস্ক ও ৩’শ পিপিই বিতরণ করেছেন। নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন চিকিৎসদের সঙ্গে।

স্বশরীরে গিয়ে জানছেন তাদের সুবিধা-অসুবিধার কথা। অক্সিজেন সিলিন্ডার আপডেট করা, আইসোলেশন সেন্টার ঠিক রয়েছে কীনা এগুলো তদারকি করছেন। হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা কার্যক্রম জোরদার করতে নানাভাবে তাদের উৎসাহিত করছেন।

এনামুল হক শামীমের উদ্ভাবিত ‘ডাক্তারের কাছে রোগী নয় রোগীর কাছে ডাক্তার’ ইতোমধ্যেই জনমনে সাড়া ফেলেছে। দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা মিলেছে।

সূত্র মতে, প্রায় এক মাস যাবত নড়িয়ায় ও সখিপুর এলাকায় করোনা দুর্যোগে ঘরবন্দি মানুষকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে চিকিৎসাসেবাসহ ওষুধ প্রদান করছে সংশ্লিষ্ট দু’টি টিম। প্রতিটি টিমে দু’জন চিকিৎসক ও দু’জন নার্স সার্বক্ষণিক সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন।

জানতে চাইলে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম কালের বলেন, ‘মন্ত্রীত্ব আমার পারমানেন্ট পদ নয়। ৩৫ বছর রাজনীতি করে এখানে এসেছি। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন ‘মানবতার জননী’। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে কোন দুর্যোগে গরীব ও মেহেনতি মানুষের পাশে ছিলেন এবং আছেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে কোনো গরীব-দুঃখী না খেয়ে কষ্ট পায় না।’