আজ বৃহস্পতিবার, ২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

শরীয়তপুরে পঞ্চম দিনেও সফলভাবে ট্রাফিক সপ্তাহ পালিত

সারা দেশের ন্যায় শরীয়তপুরে ট্রাফিক সপ্তাহ পালিত হচ্ছে। ৫ আগস্ট থেকে এ ট্রাফিক সপ্তাহ শুরু হয়েছে। এ ট্রাফিক সপ্তাহ ১১-ই আগষ্ট পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। আর এ ট্রাফিক সপ্তাহের কারণে শরীয়তপুর এখন প্রায় অবৈধ যানবাহন চলাচল মুক্ত বলা চলে। এদিকে বাজারে হেলমেটের চাহিদা বাড়ায় তার দামও বেড়ে গেছে বলে জানালেন হেলমেট ব্যবসায়ীরা। বিআরটিএ অফিসেও ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য প্রতিদিন ভীড় জমাচ্ছে যানবাহন ড্রাইভিং চালকরা।

জানা যায়, রাস্তায় চলমান ত্রুটিযুক্ত যানবাহনের উপর ট্রাফিক আইনে বিদ্যমান বিভিন্ন ধারা অনুযায়ী রুট পারমিট, ফিটনেসবিহীন, ড্রাইভিং লাইসেন্সবিহীন, ভূয়া ড্রাইভিং লাইসেন্সধারী চালকের বিরুদ্ধে ১৯৮৩ সালের মোটরযান অধ্যাদেশ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় জেলা পুলিশ বিভাগ শরীয়তপুরের প্রত্যেকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চেক পোষ্ট বসিয়েছে। আর এ কাজে সাংবাদিকসহ জনসাধারণ শতঃস্ফুর্ত ভাবে সহযোগিতা করছে।

এ ব্যাপারে শরীয়তপুর পুলিশ সুপার কার্যালয়ের বিশেষ শাখার ডিআইও-২ মোঃ আজহারুল ইসলাম জানিয়েছেন, ৫ আগস্ট ট্রাফিক সপ্তাহ শুরু হয়েছে। আর এ ট্রাফিক সপ্তাহের পঞ্চম দিনে জেলায় বিভিন্ন রুটে চলমান 334 টি গাড়ীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে এবং মটর সাইকেল অন্যান্য যানবাহনসহ 35 টি গাড়ী আটক করা হয়েছে।

ট্রাফিক সার্জেন্ট মেহেদী হাসানের সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন, সরকার ঘোষিত ট্রাফিক সপ্তাহ অত্যন্ত সুন্দর ভাবে পালন করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে বিভিন্ন ধারা অনুযায়ী রুট পারমিট, ফিটনেসবিহীন, ড্রাইভিং লাইসেন্সবিহীন, ভূয়া ড্রাইভিং লাইসেন্সধারী চালকের বিরুদ্ধে ১৯৮৩ সালের মোটরযান অধ্যাদেশ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। এ কাজটি যদি আমরা সুন্দর ভাবে সম্পন্ন করতে পারি তাহলে গাড়ির চালকরা সচেতন হবে। জেলার সড়ক দুর্ঘটনা অনেকাংশে কমে যাবে।

এ ব্যাপারে নড়িয়ার সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ কামরুল হাসান এবং সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) তানভীর হায়দার শাওন বলেন, সারা দেশের ন্যায় শরীয়তপুরে ট্রাফিক সপ্তাহ পালিত হচ্ছে। ৫ আগস্ট থেকে এ ট্রাফিক সপ্তাহ শুরু হয়েছে। চলবে ১১ আগষ্ট পর্যন্ত। আর এ ট্রাফিক সপ্তাহে ১৯৮৩ সালের মোটরযান অধ্যাদেশ অনুযায়ী রাস্তায় চলমান ত্রুটিযুক্ত যানবাহনের উপর ট্রাফিক আইনে বিদ্যমান বিভিন্ন ধারায় রুট পারমিট, ফিটনেসবিহীন গাড়ি, ড্রাইভিং লাইসেন্সবিহীন চালক, ভূয়া ড্রাইভিং লাইসেন্সধারী চালকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আমরা ট্রাফিক সপ্তাহ সফল করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।