শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০ ইং, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ রবিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০ ইং, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ রবিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২০ ইং

ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদ শরীয়তপুর জেলা শাখার উদ্যোগে সমগ্র জেলায় বেল চারা রোপণ

ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদ শরীয়তপুর জেলা শাখার উদ্যোগে সমগ্র জেলায় বেল চারা রোপণ
ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদ শরীয়তপুর জেলা শাখার উদ্যোগে সমগ্র জেলায় বেল চারা রোপণ

বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্ঠান ঐক্য পরিষদের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদ শরীয়তপুর জেলা শাখা কতৃক আসন্ন শারদীয় দূর্গা পূজাকে কেন্দ্র করে এক ব্যতিক্রমি চমৎকার উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে এবং তা ইতিমধ্যে বাস্তবায়িত হয়েছে। উক্ত সংগঠন শরীয়তপুর জেলার যে সকল মন্দিরে দূর্গা পূজা উদযাপন করা হয় সে সকল মন্দির সহ জেলার প্রায় সকল বড় মন্দির গুলোতে বেলের চারা করেছে। যা নিঃসন্দেহে একটি চমৎকার উদ্যোগ।

গত শুক্রবার, শনিবার এবং রোববার যথাক্রমে ১৬, ১৭ এবং ১৮ই অক্টোবর ২০২০ই তারিখ গুলোতে উক্ত সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপজেলা ভিত্তিক ভাবে একেকদিন দুটি করে উপজেলায় গিয়ে স্ব স্ব কমিটির লোকজনকে সাথে নিয়ে প্রায় ১০০টি বেল চারা রোপণ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন শরীয়তপুর জেলা যুব ও ছাত্র ঐক্য পরিষদের আহবায়ক শ্রী সমীর চন্দ্র শীল, যুগ্ম আহবায়ক রুপক চক্রবর্তী, যুগ্ম আহবায়ক সৈকত ভট্টাচার্য, যুগ্ম আহবায়ক নিলয় ভাট্টাচার্য, সদস্য শিমুল গুহ, রবিন চ্যাটার্জী, অপূর্ব মন্ডল, সদস্য আকাশ চক্রবর্তী, সঞ্জিত বাড়ৈ সহ বিভিন্ন মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দ।

ধানুকা মনসা বাড়ি মন্দির কমিটির সভাপতি শ্রী শ্যামাপদ চক্রবর্তী বলেন, আমাদের মন্দিরে শরীয়তপুর জেলা ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ এসে একটি বেলের চারা রোপণ করেছে। বিল্বপত্র আমাদের নিত্য দিনের প্রয়োজনীয় একটি বস্তুু কেননা আমাদের সকল পূজায় বিল্বপত্র প্রয়োজন। এমন একটি চমৎকার উদ্যোগ গ্রহনের জন্য আমি বাংলাদেশ ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদ শরীয়তপুর জেলার নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ জানাই। ইতিপূর্বে কোন সংগঠন করেছে এমন চমৎকার উদ্যোগ গ্রহন করছে বলে আমার মনে হয় না।

শরীয়তপুর জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মুকুল চন্দ্র রায় বলেন, আমাদের যুবক ও ছাত্রদের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদ শরীয়তপুর জেলা শাখা কতৃক জেলার বিভিন্ন মন্দিরে বেলচারা রোপন করবার যে মহৎ উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে এতে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। প্রতিনিয়ত পূজার উপকরণ হিসেবে বেলপাতা প্রয়োজন হয়। তাই প্রতিটি মন্দিরে বেলগাছ থাকা উচিত বলে আমি মনে করি। শরীয়তপুর জেলা ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দকে এই মহৎ কাজটি করবার জন্য আমি জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ হতে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

বাংলাদেশ ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদ শরীয়তপুর জেলা শাখার আহবায়ক সমীর চন্দ্র শীল ও যুগ্ম আহবায়ক রুপক চক্রবর্তী বলেন, আমরা আমাদের প্রানের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র ও যুব ঐক্য পরিষদ শরীয়তপুর জেলা শাখার পক্ষ হতে আসন্ন শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষে জেলায় বিভিন্ন উপজেলার যে সকল মন্দির গুলোতে দূর্গা পূজা উদযাপন হয় সেই সমস্ত মন্দির সহ জেলার প্রায় বড় মন্দির গুলোতে প্রায় ১০০টি বেলচারা রোপন করেছি। আমরা জানি যে বোধন দূর্গা পূজার একটি অংশ আর এই বোধনের পূজা বেলতলাতে অনুষ্ঠিত হয়। তাই প্রতিটি দূর্গা মন্ডবের পাশে বেল গাছ খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। এছাড়াও আমাদের সকল পূজায় বিল্বপত্র প্রয়োজন। সর্ব্বোপরি বেল গাছ অত্যন্ত উপকারী একটি গাছ।
এ সকল কিছু চিন্তা করেই আমরা এ উদ্যোগ গ্রহন করেছি। আমাদের এ কার্যক্রম আগামীতেও চলমান থাকবে।

আমরা সংগঠনের পক্ষ হতে আরো কিছু চমৎকার উদ্যোগ গ্রহন করেছি যাহা অচিরেই বাস্তবায়ন করবো। যাহার মধ্যে এমন কিছু কাজ রয়েছে যা ইতিপূর্বে সমগ্র বাংলাদেশে কেউ করেছি। যদিও ঐ কাজ অনেক কঠিন তবুও সকলের আশির্বাদ ও সহযোগিতা নিয়ে আমরা তা বাস্তবায়ন করবো।

মন্তব্য

comments

শরীয়তপুর নিউজে প্রকাশিত কোন তথ্য, ছবি, রেখচিত্র, আলোকচিত্র ও ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যাবহার করা নিষেধ!!


error: Content is protected !!