আজ সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১ ইং, ২৩ ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩ রজব, ১৪৪২ হিজরী
Home » টপ »

নড়িয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর ইশতেহার ঘোষনা

শরীয়তপুরের নড়িয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী অ্যাডভোকেট মো. আবুল কালাম আজাদ তাঁর ব্যক্তিগত নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে নড়িয়া বাজার পূর্বমাথায় তার নির্বাচনী কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এই ইশতেহার ঘোষণা করেন।

এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে, নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকন, সহসভাপতি আনোয়ার হোসেন বাদশা শেখ, আলাউদ্দিন বেপারী, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন বেপারী প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচিত হলে নৌকা প্রার্থী তার ঘোষিত ইশতেহার বাস্তবায়ন করবেন বলে জানান। নৌকা প্রার্থীর ইশতেহারকে দলীয় নেতা-কর্মীর পাশাপাশি সাধারণ ভোটাররাও স্বাগত জানিয়েছেন।

নির্বাচনী ইশতেহারে বলা হয়, স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নয়ন ও টিকাদান কর্মসূচি সরকার কর্তৃক প্রদেয় যেকোনো ধরনের সুবিধা প্রদান,সংক্রামক ব্যাধি প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করে কার্যকর ভূমিকা পালন, উন্নত বিশ্বের মতো স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বিভিন্ন সংস্থা সাথে নিয়ে বছরব্যাপী মশা নিধন কার্যক্রম বাস্তবায়ন, বর্জ্য অপসারণ, জলাবদ্ধতা দূরীকরণসহ অপসারিত বর্জ্যের পূনঃব্যবহার পরবর্তী আবর্জনা চূড়ান্ত গ্রাউন্ডে ফেলে দেয়া, পৌর এলাকার মহিলা ও পুরুষদের জন্য পৃথক পৃথক শৌচাগার নির্মাণ এবং সরকারি কিংবা বেসরকারি উদ্যোগে পরিচ্ছন্ন রাখা, শহর এলাকার পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেনেজ পরিষ্কারের মাধ্যমে ড্রেনেজ গুলির কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করা, ওয়ার্ড ভিত্তিক বৃক্ষরোপন কর্মসূচী বাস্তবায়ন এর মাধ্যমে পরিবেশের উন্নয়ন করা, অসুস্থ চিন্তা দূরীভুত করে নারী শিক্ষার অগ্রগতি কে প্রভাবিত করা, ইভটিজিং, যৌতুক প্রথা, বাল্যবিবাহ, কুসংস্কার ইত্যাদি দূরীকরণ।

তাছাড়া সড়ক নির্মাণ, সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের মাধ্যমে যাতায়াতের উপযোগী রাখা, পৌর শহরের বাসিন্দারা রাস্তাঘাটে চলতে গেলে নানা রকম বাধার সম্মুখীন হন, বিভিন্ন যানবাহনের যত্রতত্র অবস্থানের কারণে, সরু রাস্তা দিয়ে চলাচলের কারণে দুর্ঘটনার শিকার হন এমনকি প্রাণহানি ঘটে, সে ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট স্থানে পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা এবং দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা মোতাবেক সরু রাস্তা প্রশস্তকরণ, শহরের বিভিন্ন এলাকায় সড়কবাতির মাধ্যমে জনগণ ও প্রশাসনের চলাচল এবং জননিরাপত্তা বিধান করা, সকল ধরণের অবৈধযান যেমনঃ ট্রলি, নসিমন, করিমন ইত্যাদি যানবাহন যার ফলে জনভোগান্তির সৃষ্টি হয় এবং দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা প্রবল থাকে এ ধরণের যানবাহন দিনের বেলা চলাচল নিষিদ্ধকরণ, নড়িয়া পৌরসভাস্থ সকল মসজিদ, বিভিন্ন মাদ্রাসা ও উপাসনালয়সমূহে ধর্মীয় মৌলিক শিক্ষা দান ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে সচেষ্ট হওয়া, ভাঙন কবলিত মানুষের পূনর্বাসন ও কর্মহীনদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে সর্বোচ্চ উদ্যোগ গ্রহণ, পৌরসভার ভিতরে অবস্থিত পৌরসভার মালিকানাধীন সরকারি সকল ধরনের জলাশয় সংরক্ষণ করা এবং পুকুর উন্নয়নের মাধ্যমে মৎস্য ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন, হাট-বাজার উন্নয়নের মাধ্যমে জনসাধারণের সুবিধা বৃদ্ধি করা; কাঁচাবাজার, দুধ বাজার ইত্যাদি মার্কেটের উন্নয়ন করে সেবা প্রদান করা, নির্ধারিত পণ্যমূল্যে দ্রব্য বিক্রি নিশ্চিতের মাধ্যমে জনভোগান্তি লাঘব করা, শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য দৃষ্টিনন্দন উন্মুক্ত পার্ক ও খেলার মাঠ গড়ে তোলা, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সুষ্ঠু ও পরিচর্যার মাধ্যমে শিক্ষা ও বিনোদনের ব্যবস্থা করা, তারুণ্যকে অনুপ্রাণিত করে পারস্পারিক সৌহার্দ্য সম্প্রীতির মাধ্যমে মাদক দূরীকরণ, তারুণ্যকে অনুপ্রাণিত করে সুস্থ নাগরিক করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে সাংস্কৃতিক ও সেবা কেন্দ্র গঠন, স্টার্ট আপ, ট্রেনিং স্পেস, পাঠাগার, বিতর্কচর্চা কেন্দ্র ইত্যাদি তৈরি করা।

কারিগরি শিক্ষার মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মকে জনসম্পদ ও জনশক্তিতে রূপান্তর করে তোলা, সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সৎকারের জন্য আধুনিক শশ্মান স্থাপন, ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহারে এগিয়ে যাওয়া এবং এর মাধ্যমে পানির বিল, ট্যাক্সসহ প্রায় সব কাজ অনলাইনের মাধ্যমে করা। তবে এটি বাস্তবায়নে কিছুটা সময় লাগবে, পৌরসভার কার্যক্রমকে আরও বেগবান করার জন্য কম্পিউটার প্রিন্টার সহ যাবতীয় জিনিস সরবরাহ করা, অধিক সংখ্যক পানির পাম্প স্থাপন করে পর্যায়ক্রমে চাহিদা মোতাবেক পানি সরবরাহ করার চেষ্টা করা, পাশাপাশি গভীর নলকূপ স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ, বিদ্যুৎ সরবরাহ ; যদিও বিদ্যুৎ সরবরাহ করার দায়িত্ব পৌরসভার নয় তা সত্বেও নিজ প্রচেষ্টায় নড়িয়া পৌরসভার প্রতিটি বাড়িতে বিদ্যুৎ সরবরাহের উদ্যোগ গ্রহণ করা, আধুনিক পশু জবাইকেন্দ্র স্থাপন এবং বাজারে কসাইখানার উন্নয়নের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসম্মতভাবে পশু জবাই করা ও বর্জ্য পরিষ্কার ব্যবস্থা গ্রহণ, শহর এলাকায় বিল্ডিং কোড মেনে ইমারত গড়ে তোলার অনুমতি প্রদান ও ব্যবস্থা গ্রহণ, বার্ষিক বাজেট প্রণয়নের ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞদের মতামত গ্রহণ, ডিজিটাল পদ্ধতিতে অ্যাপস কিংবা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে নাগরিক সমাজের অভিযোগ গ্রহণ ও সার্বক্ষণিক তদারকিসহ সকল নাগরিক সুবিধা নিশ্চিতকরন, যেখানে মেয়রের সাথে নাগরিকদের সরাসরি যোগাযোগের ব্যবস্থা থাকবে, জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে “হ্যালো মেয়র” শীর্ষক নিয়মিত মতবিনিময়ের মাধ্যমে ওয়ার্ড ভিত্তিক সমস্যার সমাধান করবেন বলে জানান হয়।

মন্তব্য

comments

শরীয়তপুর নিউজে প্রকাশিত কোন তথ্য, ছবি, রেখচিত্র, আলোকচিত্র ও ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যাবহার করা নিষেধ!!