আজ শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
Home » টপ »

নড়িয়ায় জমি নিয়ে বিরোধে মামলা, বাদীর ছেলেকে কুপিয়ে হত্যা

শরীয়তপুরের নড়িয়ার মোক্তারের চর ইউনিয়নের মৃধাকান্দি গ্রামে মতিউর রহমান মুন্সি (৩০) নামে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। জমি দখলকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশি মৃধা পরিবারের সাথে তাদের বিরোধ চলছিল। মৃধা পরিবারের কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন মতির মা বানেজা বিবি।

অভিযোগ উঠেছে মামলা করার জেরে বুধবার সকাল ১০ টার দিকে তাকে কুপিয়ে আহত করা হয়। দুপুর ১২ টার দিকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

নড়িয়া থানা সূত্র জানায়,নড়িয়ার মোক্তারের চর ইউনিয়নের মৃধাকান্দি গ্রামের মৃত আব্দুল করিম মুন্সির ছেলে মতিউর রহমান মুন্সি কৃষি কাজ করেন। মাকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে থাকতেন। প্রতিবেশি ইকবাল মৃধা,বাদল মৃধা,বিল্লাল মৃধাদের সাথে ১০ শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। গত ২৩ আগষ্ট মৃধারা মতিদের জমি দখল করে রাতের আধাঁরে ঘর নির্মান করেন। ওই ঘটনায় মতির মা বানেজা বিবি মৃধা পরিবারের কয়েকজনের বিরুদ্ধে নড়িয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। এর পর তারা মতি ও তার মায়ের ওপর ক্ষুব্দ হন। সম্প্রতি তারা আদালত থেকে জামিনে আসেন। তাদের ভয়ে মতি মাকে নিয়ে গ্রাম ছেরে অন্যত্র আশ্রয় নেন। একটি প্রয়োজনে মঙ্গলবার রাতে মতি বাড়িতে ফেরেন। বুধবার সকালে তার বসত ঘরে ডুকে কুপিয়ে আহত করা হয়। খবর পেয়ে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। দুপুর ১২টার দিকে সেখানে তার মুত্যু হয়।
মতির বোন বকুল আক্তার বলেন,ইকবাল মৃধা,বাদল মৃধা,বিল্লাল মৃধাসহ ১০-২২ জন মিলে আমার ভাইকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করেছেন। ওরা দীর্ঘ দিন থেকে আমার ভাই ও মাকে হুমকী দিচ্ছিল। আমি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান,পুলিশ,এমপি,মন্ত্রীর কাছে ছুটে গিয়েছি,ধরনা দিয়েছি মা-ভাইয়ের নিরাপত্তার জন্য। কেউ আমাদের পাশে দাড়ায়নি।

মতির ভাই রিপন মুন্সি বলেন,ওরা আমাদের মারধর করে জমি দখল করে ঘর তুলেছে। এ কারনে আমার মা মামলা করেছিল। তখন তারা আরো ক্ষুব্দ হয়। এখন জামিনে এসে আমার ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করল। আমার ওদের দৃষ্টান্তমুলা শাস্তি চাই।

ঘটনার পর থেকে ইকবাল মৃধা,বাদল মৃধা,বিল্লাল মৃধা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এলাকা ছেরে পালিয়েছেন। তাদের বাড়িতে কাউকে পাওয়া যায়নি। মুঠোফোন বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেয়া যায়নি।

শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা সুমন কুমার পোদ্দার বলেন,মতি মুন্সি নামে এক যুবকে হাসপাতালে ভর্তির কিছুক্ষন পরই তার মৃত্যু হয়। শরীরের একাধিক স্থানে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানোর কারনে অনেক রক্তক্ষরন হয়েছে। যার ফলে তার মৃত্যু হয়েছে।

নড়িয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবির হোসেন বলেন,হত্যাকান্ড ঘটার খবর পেয়ে মৃধা বাড়িতে অভিযান চালানো হয়েছে। ততক্ষনে অভিযুক্তরা পালিয়ে গেছেন। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।ইকবাল মৃধা,বাদল মৃধা,বিল্লাল মৃধাসহ কয়েকজনের সাথে মতিউর রহমানের জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। এর জের ধরে হত্যাকান্ডটি ঘটেছে বলে আমাদের ধারনা।

মন্তব্য

comments

শরীয়তপুর নিউজে প্রকাশিত কোন তথ্য, ছবি, রেখচিত্র, আলোকচিত্র ও ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যাবহার করা নিষেধ!!